বানরের উপকারিতা ও অপকারিতা এবং বানরের অর্থনৈতিক গুরুত্ব

বানরের অর্থনৈতিক গুরুত্ব
বানর

প্রাইমেট বর্গের অর্ন্তগত বানর সকলের কাছেই পরিচিতি একটি প্রানী। বানরের ইংরেজি নাম Monkey এদের লম্বা হাত পা থাকায় এরা সহজেই গাছে ঝুলে থাকতে এবং একগাছ থেকে অন্য গাছে লাফিয়ে চলতে পারে। তাই এরা বেশীরভাগ সময়ই এরা গাছে থাকে।

বুদ্ধিমত্তা, সামাজিক ও পারিবারিক আচরনের কারনে বানর সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করে। প্রানীজগতে মানুষের জীনের গঠনের সাথে বানরের জীনের গঠন সবছেয়ে কাছাকাছি। তাই বানর নিয়ে মানুষের কৌতুহলও সবসময় বেশী। সেই কৌতুহলের প্রেক্ষিতেই আজকের এই পোস্টে বানরের অর্থনৈতিক গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হবে যেখানে বানরের উপকারিতা এবং অপকারিতা স্পষ্ট করে তুলে ধরা হবে।

বানরের অর্থনৈতিক গুরুত্বঃ

বর্তমানে সারা পৃথিবীজুড়ে প্রায় ২৬০ প্রজাতির বানর রয়েছে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী আমাদের বাংলাদেশে বানরের প্রজাতির সংখ্যা মাত্র ছয়টি। বানর গাছে এবং স্থলে উভয় যায়গায় সহজেই মানিয়ে নিতে পারে। বানরের খাবারের তালিকায় রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ফলমূল, বীজ, ছোট ছোট কীট পতঙ্গ, টিকটিকি।

প্রকৃতির আদি এই স্তন্যপায়ী প্রানীদের অর্থনৈতিক গুরুত্বও কম না। বানরের অর্থনৈতিক গুরুত্ব বর্ণনার সুবিধার্থে আমরা দুই ভাগে ভাগ করতে পারি।

ক) বানরের উপকারিতা

খ) বানরের অপকারীতা

) বানরের উপকারিতা

সৃষ্টির প্রতিটি প্রানীই মানব কল্যানে নিহিত। বানরও মানুষের কল্যানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বানরের উপকারিতা নিছের কয়েকটি পয়েন্টে তুলে ধরা হলো।

0১. বানরের বাস্তুতান্ত্রিক গুরুত্বঃ

বানর বনজ বাস্তুতন্ত্রের এক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। বাস্তুতন্ত্রের গঠন ও স্থিতিশীলতায় বানরের গুরুত্ব রয়েছে। কোন একটি অঞ্চলের খদ্যশিকলে বানর দ্বিতীয় শ্রেনীতে অবস্থান করে। বানরের উপস্থিতির হ্রাস বা বৃদ্ধি ঐ অঞ্চলের খাদ্যশিকলে সরাসরি প্রভাব ফেলে। যা বাস্তুতান্ত্রিক স্থিতিশীলতায় বিরাট অবদান রাখে।

২. চিকিৎসা বিজ্ঞানে বানরের গুরুত্বঃ

বানরের উপকারী গুরুত্ব বর্ণনা করতে গেলে সবার আগে আসবে চিকিৎসা বিজ্ঞানের নাম। বানর আর চিকিৎসা বিজ্ঞান দুইটা একে অপরের সাথে নিবিড় ভাবে জড়িত। চিকিৎসা বিজ্ঞান গবেষনায় সবছেয়ে বেশী ব্যবহৃত প্রানী হচ্ছে বানর প্রজাতি।

গবেষণায় কেন বানর ব্যবহার করা হয়?

আমরা প্রায় দেখি বিভিন্ন মেডিসিন কিংবা নতুন কোন আবিষ্কারের ক্ষেত্রে সবার আগে তা বানরের দেহে প্রয়োগ করা হয়। পৃথিবীতে এতো ধরনের প্রানী থাকতে বানরের উপর কেনো তা প্রয়োগ করা হয়?

এর উত্তর হচ্ছে, মানুষের সাথে বানরের জীনতাত্বিক এবং শারীরবৃত্তীয় সর্ম্পকের অনেক বেশী মিল রয়েছে যা অন্য কোন প্রানীর সাথে নেই। মানুষের মতো বানরেরও মস্তিষ্কের গঠন, পেশীর গঠন, প্রজনন এবং প্রতিরোধ ব্যবস্থা প্রায় একই রকম। ফলে বানর নিয়ে গবেষনার ফলে প্রাপ্ত ফলাফল অন্য প্রানীদের উপর গবেষনার তুলনায় বেশী কার্যকরি ফলাফল প্রদান করতে পারে। তাই চিকিৎসা বিজ্ঞান এবং গবেষনার ক্ষেত্রে বানর এক গুরুত্বপূর্ন উপাদান।

চিকিৎসা ক্ষেত্রে Parkinson's disease, প্রজনন সম্পর্কিত গবেষনা, বিভিন্ন ধরনের নতুন আবিষ্কৃত টিকা এবং বিভিন্ন স্নায়ুবিক মেডিসিনের ট্রায়াল প্রথমে বানরের উপর প্রয়োগ করা হয়।

বানর প্রজাতি মানুষের মতোই বিভিন্ন ধরনের রং দেখতে পারে এবং এরা বাইনোকুলার ধরনের। তাই চোখের দৃষ্টি সংক্রান্ত মেডিসিন এবং গবেষনার জন্য বানরকেই নির্বাচন করা হয়।

সম্প্রতিক সময়ে কোভিড ভ্যাকসিনের প্রথম ট্রায়াল রেসাস বানর/ লাল বানরের উপর প্রয়োগ করা হয়েছে। বানরের উপর ট্রায়াল দেওয়ার পরই চূড়ান্তভাবে তা মানব দেহে প্রয়োগ করা হয়েছে।

০৩. বনায়নে বানরের ভূমিকাঃ

বর্তমান পৃথিবীর সবছেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে বনায়ন ধ্বংস করা। যা আমরা জেনে বুজেই প্রতিনিয়তই করে আসছি। আমরা যেখানে প্রতিযোগিতা করে বনায়ন ধ্বংস করছি সেইখানে বানর বনায়ন সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখছে।

বানর গাছের ফল, বীজ ভক্ষন করার জন্য এক গাছ থেকে অন্যগাছে লাফিয়ে বেড়ায়। ফলে বানর এক গাছের বীজ ভক্ষন করে তা অন্য এলাকায় গিয়ে মলত্যাগ করার মাধ্যমে কিংবা তাদের লোমশ শরীরের সাথে লেগে গিয়ে ফল/ উদ্ভিদের বীজের বিচ্ছুরণ ঘটে। এই বীজ বিচ্ছুরনের মাধ্যমে নতুন অঞ্চলজুড়ে ফল বা উদ্ভিদের চারা গজানোর মাধ্যমে বনায়নের প্রসার ঘটে। যা একসাথে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

০৪. মানুষের ইতিহাস জানাঃ

মানুষের সৃষ্টির ইতিহাস নিয়ে বিজ্ঞানিদের এখনো কৌতুহল রয়েছে। মানুষের সৃষ্টির ইতিহাস গবেষনা করতে গিয়ে গবেষকরা বানরকে বেছে নেয়। কারন মানুষের ডিএনএর সাথে বানরের ডিএনএর মিল রয়েছে প্রায় ৯৮.৫% (শিম্পঞ্জি)। সেই হিসেবে শিম্পাঞ্জিই আমাদের সবছেয়ে নিকট আত্মীয়। ধারনা করা হয় ৬ মিলিয়ন বছর পূর্বে একটি সাধরন পূর্বপুরষ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে মানুষ ও শিম্পাঞ্জি দুইটি আলাদা দল তৈরী হয়েছে। তাই বানর সম্পর্কে যতো বেশী জানা যাবে ততোই মানব জাতির সৃষ্টির ইতিহাস সম্পর্কে জানা যাবে।

 ০৫. কৃষিতে বানরের গুরুত্বঃ

কৃষিতে বানরের উপকারী ভূমিকার ছেয়ে অপকারী ভূমিকাই বেশী। যা বানরের ক্ষতিকর দিকে আলোচনা করা হবে। তবে ক্ষতিকর ভূমিকা থাকলেও কিছু উপকারী ভূমিকাও রয়েছে। বানর ছোট ছোট কীটপতঙ্গ ভক্ষন করে। সেই হিসেবে এরা কৃষি জমির ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কীট পতঙ্গ খেয়ে ফসলের ক্ষতি হতে রক্ষা করে। ফসলের মাঠের সবছেয়ে বড় শত্রু ইঁদুর এবং খরগোশ তাড়ানোতেও এরা ভূমিকা রাখে। এছাড়া পরাগায়নেও বানরের ভূমিকা রয়েছে।

 ০৬. চিত্তনান্দনিক গুরুত্বঃ

বানর আর বাঁদরামি দুইটা একটা আরেকটার সাথে জড়িত। আর বানরের বাঁদরামি ভালো লাগে না এমন মানুষ খুব কমই আছে। তাই গ্রামে গঞ্জে এখনো কিছু কিছু মানুষ বানরের খেলা দেখিয়ে অর্থ উপার্জন করে একই সাথে অন্যরা বানরের খেলা উপভোগ করে। এইটা একই সাথে একজন মানুষের উপার্জনের মাধ্যম সাথে অন্যদের বিনোদনের খোরাক জোগায়। মানুষ বানরের বাঁদরামি উপভোগ করে বলেই বানরকে দেখার জন্য চিড়িয়াখানায় যায়।

০৭. খাদ্য হিসেবে বানরঃ

আইভরিকোষ্ট সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এবং অনেক পাহাড়ি উপজাতী গোষ্ঠী বানরের মাংস খায়। বিশেষ করে পটাস বানরগুলোকে মাংসের জন্য শিকার করা হয়ে থাকে।

০৮. পোষা প্রানী হিসেবে বানরঃ

পোষা প্রানী হিসেবে বানর অনেকের পছন্দের। বানরের সামাজিক আচরনের কারনে অনেক প্রানীপ্রেমী বানরকে পোষা প্রানী হিসেবে গ্রহণ করে।

 

খ) বানরের অপকারিতাঃ

বানরের উপকারী ভূমিকার সাথে সাথে কিছু অপকারী ভূমিকা রয়েছে। যেগুলোর কারনে অনেকেই বানরকে পছন্দ করেন না। নিছে বানরের অপকারি ভূমিকা গুলোর একটি ছোট বিবরন দেওয়া হলো। 

০১) বানর দ্বারা ফসলের ক্ষতিঃ

বানরের অপকারী ভূমিকার মধ্যে সবার আগে আসবে কৃষকের ফসলের ক্ষতি। বানর ফল, বীজ ও অংকুর ভক্ষন করে। তাই কৃষকের ফসলের মাঠ বানরের সবছেয়ে প্রিয়। বিশেষ করে পাহাড়ি এলাকাগুলোতে বানর দ্বারা কৃষকের ক্ষতির পরিমান সবছেয়ে বেশী। এরা দলবদ্ধ ভাবে কৃষকের ভূট্টা ক্ষেত, আাখের ক্ষেত, তরমুজের ক্ষেত, ধানক্ষেত, গম ক্ষেতে আক্রমন করে। আক্রমনের তীব্রতায় কখনো কখনো ফসলের প্রায় ৯০% পর্যন্ত ক্ষতি করে ফেলতে পারে।

এছাড়াও বানর ফলের বাগানেও দলবদ্ধ ভাবে কিংবা একাকী ভাবে আক্রমন করে। বিশেষ করে আম, কাঠাল, লিচু, নাশপাতি, পেয়ারা, আনারস, আঙ্গুর ইত্যাদি ফলের বাগানে বানর বেশী আক্রমন করে। কারন এইসব ফল বানরের প্রিয় খাবারের মধ্যে পড়ে।

২০১৮ সালের এক সমীক্ষায় দেখা যায় ভারতের জম্মুরের প্রায় ২৫০টি গ্রামের মানুষ বানরের আক্রমনে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এবং ক্ষতির পরিমান প্রায় ৩৩ কোটি টাকা। হিমাচল প্রদেশে বানর ও অন্যান্য বন্যপ্রানীর আক্রমনে ফসলের ক্ষতির পরিমান প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। যা ঐসব অঞ্চলের কৃষকদের জন্য মারাত্বক আর্থিক ক্ষতির কারন। শুধু ভারত নয় পৃথিবীর যেসব অঞ্চলেই বানর রয়েছে সেইসব অঞ্চলের কৃষকরাই বানরের আক্রমনে ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

 ০২. রোগের জীবানু বাহক হিসেবে বানরের ভূমিকাঃ

মানুষের নিকটআত্মীয় হওয়াতে বানর এমন কিছু রোগের জীবানু বহন করে যা মানুষের জন্যও ক্ষতিকর। বানর অনেক রোগের বানক। বিশেষ করে বানর চোঁয়াছে রোগের জীবানু বহন করলে তা মানুষের জন্য মারাত্বক ভয়ের কারন হতে পারে।

বানর মানব দেহে এমন সব রোগ ছড়াতে পারে যা কখনো কখনো প্রানঘাতীও হতে পারে। যার কারনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিছু কিছু রাজ্যে পোষা প্রানী হিসেবে বানরকে নিষিদ্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। বানরের মাধ্যমে ছড়ানো রোগের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে হারপিস বি ভাইরাস এবং জলাতঙ্ক।

০৩. মানুষের উপর আক্রমনঃ

সামাজিক প্রানী হলেও বানর মানুষের উপর আক্রমন করে বসতে পারে। বানরের আক্রমন কখনো কখনো গুরুতরও হতে পারে। প্রতিবছর বানরের কামড়ানো এবং খামচির কারনে অনেক মানুষ আক্রান্ত হয়। বিশেষ করে বানরের কামড় এবং খামচির ফলে মানুষের জলাতঙ্ক এবং হারপিস বি ভাইরাসের সংক্রম ঘটার সম্ভাবনা প্রবল।

০৪. মানুষের স্বাভাবিক জীবনে বানরের ক্ষতিকর প্রভাবঃ

কিছু কিছু বানর দলবদ্ধ ভাবে লোকালয়ে বসবাস করে। এই বানরগুলো দেখতে ভালো লাগলেও এরা মানুষের স্বাভাবিক জীবনে বিরূপ প্রভাব ফেলে। এরা মানুষকে নকল করে এবং উত্যক্ত করে। একই সাথে মানুষের হাত থেকে খাবার কিংবা ব্যাগ চিনিয়ে নিয়ে যায়।

এছাড়াও ক্ষুদা লাগলে বানর মানুষের দোকানে আক্রমন করে শুকনো খাবার, ফল চুরি করে নিয়ে যায়। কখনো কখনো রান্না ঘরে প্রবেশ করে খাবার চুরি করতেও দেখা যায়। এতে মানুষের স্বাভাবিক জীবন ব্যহত হয়। মাঝে মাঝে বানর শিশুদের উপরও আক্রমন করে বসে। বিশেষ করে শিশুদের হাত হতে খাবার চিনিয়ে নিতে এরা এই কাজটি করে। 

মন্তব্যঃ

সব প্রানীরই উপকারী দিক যেমন আছে তেমনি ক্ষতিকর দিকও আছে। টেকসই ব্যবস্থার মাধ্যমে বানরের আক্রমন থেকে ফসলের ক্ষতি রক্ষা করা যেতে পারে। বানর যখন ফসলের ক্ষেতে আক্রমন করে তখন তাদের উল্টো আক্রমন করলে তারা সেই ফসলের ক্ষতি করে চাড়বেই। অপরদিকে আক্রমনের সময় তাদের ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দিলে তারা সেই ফসলের মাঠের এলাকা ছেড়ে যাবে।

তাই বানরের অপকারিতার কথা বিবেচনা না করে বরং বানরের উপকারীতা সম্পর্কে আলোচনা করাই ভালো। এতে করে বানরের প্রতি মানুষের বিরূপ ধারনা তৈরী হবে না।  


Post a Comment

How is this Article? Please say your opinion in comment box.

Previous Post Next Post